নাটোরে গোপনে শপিং ব্যাগে বই নিয়ে কোচিংয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা!

নাজমুল হাসান, বিশেষ প্রতিবেদক
করোনা প্রতিরোধে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দেয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সকল কোচিং সেন্টার বন্ধের নির্দেশনা মানছে না নাটোরের কোচিং সেন্টারগুলো। গত ১৬ মার্চ এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ১৮ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সকল কোচিং সেন্টার বন্ধের নির্দেশনা দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। নিয়মিত অভিযান ও অবহিতকরন কর্মসূচির মাধ্যমে সবাইকে সচেতন করার কথা বলেন উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা।

এদিকে করোনাভাইরাসের কারণে কোচিং সেন্টার বন্ধের সরকারি নির্দেশনা জারির পর কৌশল পাল্টে সন্তানকে কোচিংয়ে পাঠাচ্ছেন নাটোরের কতিপয় অভিভাবকরা। স্কুল ব্যাগের পরিবর্তে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ব্যবহার করছে শপিং ব্যাগ। যেন বাইরে থেকে কেউ বুঝতে না পারে ব্যাগের ভেতরে রাখা আছে বই। এমন দৃশ্য দেখা যায় জেলার কলেক্টরেট স্কুলের সামনে। শপিং ব্যাগে বই নেয়া এক শিক্ষার্থীকে প্রশ্ন করা হয়ে সে জানায়, কোচিং সেন্টারের ম্যাডাম বলেছে, স্কুল ব্যাগ আনবে না। শপিং ব্যাগে করে বই আনবে। তাহলে কেউ বুঝতে পারবেনা ব্যাগের ভেতরে বই আছে।

এ বিষয়ে কালেক্টরেট স্কুলের ঐ শিক্ষিকার মুখোমুখি হলে তিনি জানান, অভিভাবকদের পীড়াপীড়িতে বাচ্চাদের পড়াচ্ছি। শপিং ব্যাগে বই আনার কথা অস্বীকার করেন তিনি। এছাড়া শহরের বলারীপাড়ায় গিয়ে দেখা যায় বহু শিক্ষার্থীর আনাগোনা। এটা স্কুল নাকি কোচিং সেন্টার? প্রথম দেখাতে গোলক ধাঁধায় পড়বেন যে কেউ। করোনা মোকাবেলায় জনসমাগম পরিহার করতে বলা হয়েছে। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার মাঝেও বিপুল পরিমান শিক্ষার্থীদের আনাগোনা ব্রাইট ফিউচার কোচিং সেন্টার ও পাশের শামীম কোচিং সেন্টারে। এ বিষয়ে সচেতন নয় শিক্ষার্থী ও কোচিং সেন্টারের পরিচালকরা। করোনার সতর্কতার মধ্যে নিষেধাজ্ঞার অমান্য করে কোচিং পরিচালনা ঠিক হয়নি স্বীকার করে ব্রাইট ফিউচার কোচিংয়ের পরিচালন নজিবুল ইসলাম বলেন, তার ভুল হয়েছে। সাংবাদিকদের দেখে কয়েকজন শিক্ষার্থী এগিয়ে এসে বলেন, তাদের ভবিষতের ক্যারিয়ারের কথা ভাবতে হবে। এখনোতো করোনা মহামারি আকার ধারণ করেনি। কোচিং সেন্টার বন্ধ করতে হবে কেন?

তবে সচেতন অভিভাবকরা বলছেন, সরকারী নির্দেশনা মেনে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সবাইকে সচেতন হতে হবে। নাটোরের কেউ করোনা আক্রান্ত না হলেও ২৩ জনকে হোম কয়ারেন্টইনে রাখা হয়েছে। তাই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। এ সময় সন্তানদের কোচিংয়ে পাঠানো বন্ধ করার উপর জোর দেন তারা।

গণমাধ্যমকর্মীদের উপস্থিতির খবর পেয়ে মাঠে নামে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আবু হাসান। অভিযান পরিচালনা করে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কোচিং পরিচালনার দায়ে দুই সেন্টারের পরিচালককে ২০ হাজার টাকা জড়িমানা করেন। এসময় আরও তিন শিক্ষককে আটক করে কোচিং করাবেনা মর্মে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। নিয়মিত অভিযান পরিচালনা কথা হবে বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট।

একটি উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন

- Advertisment -

সর্বাধিক পঠিত

লালপুরে কৃষক-কৃষানীর প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, লালপুর নাটোরের লালপুরে ২০১৯-২০ অর্থবছরে কন্দল জাতীয় ফসল উৎপাদনে আধুনিক কলাকৌশল বৃদ্ধিতে উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় দিনব্যাপী কৃষক-কৃষানী প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার দুপুরে লালপুর...

নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত কাঠমিস্ত্রিরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, আসছে বর্ষাকাল,বিল এলাকা নামে পরিচিত নাটোরের বিভিন্ন গ্রাম অঞ্চলের জেলে পাড়ায় চলছে বর্ষাকালের নানান আয়োজন । বিশেষ করে নাটোরের জেলে সম্প্রদায়ের লোকেরা এখন...

নাটোরে করোনা উপসর্গ নিয়ে গৃহবধূর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, নাটোরে করোনা উপসর্গ নিয়ে রুমা (২২) নামে এক গৃহবধুর মৃত্যু হয়েছে। নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালের আইসলেশান ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার ভোররাতে তার মৃত্যু...

লালপুরে ওয়ালিয়া ইউপি’র উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক, লালপুর নাটোরের লালপুর উপজেলার ওয়ালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে দেশ ব্যাপী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব রোধে সামাজিক...